‘ডিভোর্স’ খারাপ না ‘বিবাহ’ টাই খারাপ !!!

By | জানুয়ারী 5, 2018

বিবাহ ও ডিভোর্স অন্যতম প্রধান কারন বিয়ে, যেহেতু ডিভোর্স হতে হলে তার আগে বিয়ের দরকার পরে।

বিয়ে না হলেতো নিশ্চই আর ডিভোর্স এর চান্স নাই।

বিয়ে নামক এই কাগজ কলমের প্রাতিষ্ঠানিক সম্পর্ক আসোলে একটা অমানবিক ব্যাপার।

এর মাধ্যমে সব কিছুর উপরে দায়বদ্ধতাকে মুখ্য হিসেবে দেখানি হয়, অন্যান্য ব্যাক্তিগত আবেগ এখানে গৌন।

বিবাহ ও ডিভোর্স – কোনটি খারাপ

২.৫ মিলয়ন বছরের মানবজাতির ইতিহাসে ব্যাক্তিগতভাবে দুজন নারী পুরুষের একসাথে থাকার ইতিহাস মাত্র ৫০০০ বছরের।

কাগজে কলমে কলমা পইড়া বিয়ের ইতিহাসতো সেইদিনের অর্থাৎ বিয়ের মাধ্যমে সংসার নামক এই প্রাতিষ্ঠানের উৎপত্তি তারো অনেক পরে।

বিয়ে আগেও ছিলোনা পরেও থাকবেনা। এসব নিয়ে এতো উদ্বিগ্ন হওনের কিছু নাই। ডিভোর্সটা খারাপ নাকি বিয়েই খারাপ!

বিবাহ ও ডিভোর্স কোনটি খারাপ

যে সামাজিক এবং অর্থনৈতিক নিরাপত্তা পিতামাতার কাছ থেকে মানুষ পায় তা যদি রাষ্ট্রই দিতে পারে তবে বিয়ে প্রথার আর তেমন কোনো প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না।

প্রাচীন যুগে মানুষ বিয়ে ব্যাতিতই সামাজিক ভাবে সন্তান উৎপাদন করছে এবং প্রতিটি সন্তান সেই গোষ্ঠির সম্পদ হিসেবেই সমান যত্নে বেড়ে উঠছে, এমনকি মধ্য যুগেও অনেক অঞ্চলে অনেক গোষ্টির মাঝে এই ব্যাবস্থা দেখা গেছে।

কিন্তু এখন বিয়ে প্রথার মাধ্যমে মানুষকে সামাজিক বন্ধনের বদলে পারিবারিক বন্ধনে আবদ্ধ করা হচ্ছে, যা ব্যাক্তিকে আরো বেশি ব্যাক্তিগত করে দিচ্ছে তার ফলে মানুষ অস্থির পুঁজিবাদী প্রতিযোগিতায় নামতে বাধ্য হচ্ছে।

বিবাহ ও ডিভোর্স কেন হয়

যেখানে মানুষের ব্যাক্তিগত স্বামী স্ত্রী আছে সেখানে ব্যাক্তিগত সম্পদের চাহিদা থাকাই স্বাভাবিক।

বিয়ের উৎপত্তিই হয়েছে ব্যাক্তিগত সম্পদ টিকিয়ে রাখা এবং এই সম্পদের উত্তরাধিকার তৈরির উদ্দ্যেশ্যে। তাই এর প্রক্রিয়াই একটা হিপোক্রেসি।

ট্রাইবের সম্পদ যখন ব্যাক্তি পাওয়ার পলিটিক্স এর মাধ্যমে লুন্ঠন করে ভোগদখল শুরু করছে তখনই এই সামন্ত প্রথার উদ্ভব।

বিবাহ নাকি ডিভোর্স

বিয়ে প্রথা যতোদিন পর্যন্ত এতো গুরুত্বপূর্ন থাকবে ততোদিন পুঁজিবাদী সংস্কৃতির অস্থির এই ভোগবাদি প্রবণতা কাটিয়ে উঠে শ্রেণীহীন সাম্যবাদী সমাজ প্রতিষ্ঠিত করার স্বপ্ন বাস্তবায়নের চেষ্টা শুধুই হয়তো কাল্পনিক!!!

আর বিয়ে প্রথার বিরোধিতার ক্ষেত্রে নারীমুক্তি পয়েন্টটাও ইম্পর্টেন্ট।

সকল সামজিক এবং অর্থনৈতিক সুবিধা পেলেও একজন নারীকে কেন গভীর রাত তুরি খাবার নিয়ে ডাইনিং টেবিলে বসে থাকতে হবে, ঘুম ঘুম চোখে লিপিস্টিক, স্নো পাওডার মেখে খাটে চড়বে! অথবা কেন শুধুমাত্র কিছু সুবিধা প্রাপ্তির বিনিময়ে তাকে বিয়ের মাধ্যমে পুরুষের পার্পাস সার্ভ করতে হবে!

সম্পাদনায়: রাতুল মোহাম্মদ

Share This!

Category: Blog-Discussion ট্যাগসমূহ:, , , , ,

About Aminul Islam

আমি ব্লগ লিখতে পছন্দ করি। কাজের ফাঁকে আর্টিকেল পড়া এবং প্রযুক্তি বিষয়ক ব্লগ আমার ভালো লাগে। অনলাইনে কাজ করার চেষ্টা করি বেশিরভাগ সময়। আমি শিখতে এবং জ্ঞ্যান শেয়ার করতে ভালোবাসি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।